কোথায় তিল থাকলে কি হয়

কম-বেশি প্রত্যেক লোকের শরীরেই তিল দাগ দেখা যায়। দৈহিক গঠন ও হস্তরেখা যেমন মানুষের গোপন রহস্য উদঘাটনে সক্ষম তদ্রূপ তিল চিহ্নও মানুষের মঙ্গলামঙ্গল ও স্বভাব-প্রকৃতি জ্ঞাপনে বিবেচিত হয়। নিম্নে কোথায় তিল থাকলে কি হয় তা উপস্থাপন করা হলো :

মাথায় তিল থাকলে- সে মিশুক, সম্মানিত ও প্রভাবশালী হবে।
কপালে তিল থাকলে- সে ভাগ্যবান, সমৃদ্ধিশালী ও পরহেযগার হবে।
বুকের বাম দিকে তিল থাকলে- সে বিলাস যাপনে অর্থ অপচয় করবে। স্ত্রীর সহিত বনিবনা কম হবে।
কোমরে তিল থাকলে- প্রায়শঃ বিদেশ থাকতে হবে, ব্যবসায় অধিক লাভ হবে। পিঠে তিল থাকলে- তার ভাগ্য সুপ্রসন্ন হবে। প্রচুর টাকা-পয়সা হাতে আসবে।

পেটের উপরিভাগে তিল থাকলে- সে মনিব ও ঊর্ধ্বর্তনের কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি ও সহায়তা পাবে।
পেটের বাম পার্শ্বে থাকলে- সে কঠিন রোগ বা অন্য বিপদে পড়বে।
স্ত্রীলোকের ডান দিকের স্তনের উপরিভাগে তিল থাকলে- সে অধিক সন্তানের মা হবে, স্বামীকে ভাল বাসবে। বাম দিকের স্তনে থাকলে- সে অহরহ রোগে ভুগবে, স্বামীর সাথে প্রায়ই ঝগড়া হবে।

হাতের তালুতে তিল থাকলে- সে ব্যবসা- বাণিজ্যে উন্নতি করবে। প্রচুর অর্থ পায়ে বা রানে থাকলে তার সম্মান বৃদ্ধি ও জীবনে প্রচুর উন্নতি লাভ করবে।
কপালের ডান পার্শ্বে তিল থাকলে- সে নেককার, ধর্মভীরু ও ভাগ্যবান হবে। কপালের বাম দিকে থাকলে- সে দুর্ভাগা হবে।

চোখের ভ্রূতে তিল থাকলে- সে জীবনের অধিক সময় প্রবাসে কাটাবে। উভয় ভ্রূতে থাকলে- পুরুষ হলে সুন্দরী স্ত্রী ও স্ত্রী হলে শক্তিশান স্বামী পাবে। মুখাবয়বের ডান দিকে থাকলে- সে সমৃদ্ধশালী ও ভাগ্যবান হবে। বাম দিকে থাকেল- নেহায়েত গরীব ও কাঙ্গাল হবে। উপরের ঠোঁটে তিল থাকলে- বিলাসিতায় অর্থের অপচয় করবে। নিচের ঠোঁটে থাকলে- ঝগড়া ঝাটিতে কাল কাটাবে। এটা মুখরা হওয়ার লক্ষণ। এদের লজ্জা- শরমও কম। ঠোঁটের এক কিনারায় থাকিরে- সে সমৃদ্ধশালী ও লজ্জাশীল হবে।

ঘাড়ের উপর তিল থাকলে- সে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সহানুভূতি লাভ করবে। বাম কাঁধে থাকলে- কঠোর পরিশ্রমে জীবিকা নির্বাহ করবে। বুকের মাঝখানে তিল থাকলে- অধিক সন্তান ও ধনশালী হবে। বুকের ডান পার্শ্বে থাকলে- সে অতি দুঃখ দুর্দশায় জীবন কাটাবে।

এসব তিলতথ্য হাজার বছর ধরে মুণিষীগন তাদের অনুসারীদেরকে পরামর্শ দিয়ে আসছেন। এবং আদিকাল থেকে এগুলো সবাই মেনে আসছেন। যার অধিকাংশই সঠিক বলে ধারনা করা হয়। দোয়ার ভান্ডার এসকল তথ্য নিয়েই সাজানো। আপনার দেহে থাকা তিল এর সাথে এখানে দেয়া তথ্যের মিল আছে কিনা, কমেন্টে জানাবেন।

আরও পড়ুন – ফিতরা আদায়ের নিয়ম

Leave a Comment